আপনার অবস্থান
মুলপাতা > অন্যান্য সংবাদ > নলেজ রেমিটেন্স এর মাধ্যমে বাংলাদেশকে রূপান্তর করার প্রত্যয়ে এনআরবি কনক্লেভ অনুষ্ঠিত

নলেজ রেমিটেন্স এর মাধ্যমে বাংলাদেশকে রূপান্তর করার প্রত্যয়ে এনআরবি কনক্লেভ অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের আয়োজনে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হল নন রেসিডেন্ট বাংলাদেশী তথা এনআরবি কনক্লেভ।

বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশীদের দেশের জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নে সম্পৃক্ত করার উদ্দেশ্যে আয়োজিত এ সম্মেলনের স্লোগান ছিল নলেজ রেমিটেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশের রূপান্তরকরন।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বিদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসরত বাংলাদেশীরা উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করার মাধ্যমে বাংলাদেশের জন্য সুনাম অর্জন করেছে। এদের মধ্যে অনেকেই বাংলাদেশের উন্নতি সাধনে তাদের অবদান রাখার জন্য সদা ইচ্ছুক এবং তারা প্রায়শই দেশের উন্নয়নে সম্পৃক্ত থাকার উপায় এর সন্ধানে থাকেন। তাদের এই ইচ্ছাকে বাস্তবে রূপান্তরিত করার প্রত্যয়ে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম এর একটি প্রয়াস হল এনআরবি কনক্লেভ যা বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশীদের জন্য একটি প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে।

রাজধানীর লা-মেরিডিয়ান হোটেলে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপি এ সম্মেলনে প্রায় তিনশত আমন্ত্রিত অতিথি অংশগ্রহণ করেন, যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাগন, শিল্পপতি, কর্পোরেট চাকুরিজীবি, শিল্পি, সাংবাদিক এবং স্বনামধন্য অবসবাসকারী বাংলাদেশিরা সহ আরো অনেকে।

সম্মেলনে বক্তব্য দিতে গিয়ে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যাবস্থাপনা পরিচালক শরিফুল ইসলাম বলেন, “উন্নয়নের যাত্রার একটি বিশেষ অধ্যায় পার করছে বাংলাদেশ এবং এ যাত্রায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভ’মিকা পালন করবে আগামী দশ বছর। এমতাবস্থায় উন্নয়নের পরবর্তি অধ্যায় পার করার জন্য আমাদেরকে সর্বাধুনিক চিন্তা চেতনা এবং প্রযুক্তির প্রয়োগ ঘটিয়ে নিত্য নতুন মডেল এর ব্যবহার করতে হবে। বিদেশে বসবাসরত বাংলাদেশীরা তাদের জ্ঞানকে রেমিটেন্স হিসেবে দেশে ফেরত পাঠানোর মাধ্যমে উন্নয়নের এ যাত্রায় অর্থবহ অবদান রাখতে পারবে।”

এবারের এনআরবি কনক্লেভ এ ছিল ৩টি কিনোট উপস্থাপন, ৪টি প্যানেল আলোচনা ও ৩টি ইনসাইট সেশন। এছাড়াও সম্মেলন প্রাঙ্গনে ছিল দেশের আট বিভাগের ঐতিহ্যের বিশেষ প্রদর্শনী এবং বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের দশ বছরের সাফল্যের প্রদর্শনী। পাশাপাশি ছিল গত কয়েক বছরের বেষ্ট ব্র্যান্ড এওয়ার্ড বিজয়ীদের তুলনামুলক প্রদর্শনী।

কিনোট উপস্থাপনের আলোচ্য বিষয়গুলো ছিল – ‘দ্য গ্লোবাল র্পাসপেক্টিভ’ বা বৈশি^ক দৃষ্টিভঙ্গি, ‘দ্য বাংলাদেশ ইকোনমিক স্টোরি’ বা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক গল্প, এবং ‘স্টোরি অব এন এনআরবি হু মেইড ইট ইন বাংলাদেশ’ বা বাংলাদেশে একজন সফল এনআরবি’র গল্প।

কিনোট ৩টি যথাক্রমে উপস্থাপন করেন লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস এর গভর্নর ও ভিজিটিং প্রফেসর ইন প্র্যাক্টিস জনাব লুৎফি সিদ্দিকী, বাংলাদেশ ব্যাংকের চিফ ইকোনমিস্ট জনাব ফয়সাল আহমেদ এবং এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক জনাব হুমায়ুন রশিদ।

৩টি ইনসাইট সেশনের আলোচ্য বিষয়গুলো ছিল ‘বাংলাদেশ পোটেনশিয়াল – রোল অব ডায়াসপোরা’, ‘দ্য স্টোরি অব প্রাভা হেল্থ’ এবং ‘ম্যাসেজ ফ্রম বিসিসিবি’।

ইনসাইট সেশনগুলো উপস্থাপন করেন যথাক্রমে এসিআই লিমিটেডের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক জনাব আরিফ দৌলা, প্রাভা হেলথ এর প্রতিষ্ঠাতা, ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও জনাবা সিলভানা কিউ সিনহা, ইএসকিউ এবং বিসিসিবি এর ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং কানাডার সেটেনিয়াল কলেজের সাস্থ্য ও নিরাপত্ত্বা কনসালটেন্ট জনাবা রুবানা সেলিম সিআরএসপি।

এছাড়াও চারটি প্যানেল আলোচনায় ২১ জন বিশেষজ্ঞ অংশগ্রহন করেন। প্যানেল আলোচনাগুলোর আলোচ্য বিষয়গুলো ছিল- ‘ইনভেস্টমেন্ট এন্ড এনআরবি চ্যালেঞ্জেস’, ‘দ্য কালচার স্টোরি অব বাংলাদেশ’, ‘এনআরবি এন্ড ফিউচার স্কিল ডেভেলপমেন্ট’ এবং ‘এনআরবি এন্ড ট্রান্সফর্মিং দ্য এইট ডিভিশন থ্রূ ইনোভেশন।

প্রথম প্যানেল আলোচনায়, যার আলোচ্য বিষয় ছিল ‘ইনভেস্টমেন্ট এন্ড এনআরবি চ্যালেঞ্জস’, অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপেমেন্ট অথরিটির নির্বাহী চেয়ারম্যান জনাব কাজি এম আমিনুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের চিফ ইকোনমিস্ট জনাব ফয়সাল আহমেদ, দ্য ব্রিটিশ কারি এওয়ার্ড এর ফাউন্ডার ও ডিরেক্টর এবং আইঅন টেলিভিশনের চেয়ারম্যান জনাব এনাম আলি এমবিই, এফআইএইচ; এনআরবি ব্যাংক লিঃ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও জনাব মোঃ মেহমুদ হুসেইন, বাংলাদেশ ইকোনোমিক জোনস অথরিটি বেজা) এর এডিশনাল সেক্রেটারি এবং এক্সেকিউটিভ মেম্বার জনাব মোহাম্মদ আইয়ুব, এবং লন্ডন স্কুল অব ইকোনোমিক্স এর গর্ভনর এবং প্রফেসর ইন প্র্যাকটিস জনাব লুৎফি সিদ্দিকী।

দ্বিতীয় প্যানেল আলোচনার মূল বিষয় ছিল ‘দ্য কালচার স্টোরি অব বাংলাদেশ’ যাতে অংশগ্রহণ করেন চিত্রনির্মাতা জনাব কামার আহমেদ সায়মন; সংগীতশিল্পী জনাবা মেহরীন মাহমুদ; ভিজুয়াল আর্টিস্ট, বাংলাদেশ ক্রিয়েটিভ ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা, ওমেন ইন লিডারশিপ এর প্রেসিডেন্ট জনাবা নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা; গ্রে এডভার্টাইজিং বাংলাদেশ এর ম্যানেজিং পার্টনার এবং কান্ট্রি হেড জনাব সৈয়দ গাউসুল আলম শাওন।

তৃতীয় প্যানেল আলোচনার আলোচ্য বিষয় ছিল ‘ এনআরবি এন্ড ফিউচার স্কিল ডেভেলপমেন্ট’ যেটিতে অংশগ্রহন করেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর জনাব সৈয়দ সাদ আন্দালিব, পিএইচডি; অস্ট্রেলিয়ার সিনিওর লেকচারার এবং এপিডেমিওলজিস্ট ডঃ মিল্টন হাসনাত,দ্য ফাউন্ডেশন ফর চ্যারিটেবল একটিভিটিস ইন বাংলাদেশ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর জনাবা মৌসুমি এম খান, জেডি, এমপিএ; একুয়া পেইন্টস এর স্ট্র্যাটেজি, মার্কেটিং এবং অপারেশন্স এর গ্রুপ ডিরেক্টর জনাব শায়ান সিরাজ।

চতুর্থ প্যানেল আলোচনার আলোচ্য বিষয় ছিল ‘ এনআরবি এন্ড ট্রান্সফর্মিং দ্য এইট ডিভিশনস থ্রু ইনোভেশন’ যেটিতে অংশগ্রহন করেন কালারস এফ এম এর সিইও জনাব নাজিম ফারহান চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার পাবলিক সেফটি টেকনোলজি সিকিউরিটি এক্সপার্ট এবং উদ্যোক্তা জনাব কাউসার জামাল; স্পাইডার ডিজিটাল কমার্স এর ম্যানেজিং ডিরেক্টও এবং চিফ ইনোভেশন অফিসার জনাব কাজি মনিরুল কবির; গ্রামীণফোন এক্সেলেরেটর এর হেড, বেটারস্টোরিজ এশিয়ার চিফ স্টোরিটেলার জনাব মিনহাজ আনওয়ার; বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি বিভাগের স্টার্ট-আপ বাংলাদেশের ইনভেস্টমেন্ট এডভাইজর জনাবা টিনা জাবিন; এবং দ্য বোস্টন কন্সাল্টিং গ্রুপ এর প্রোজেক্ট লিডার জনাব তৌসিফ ইশতিয়াক।

এনআরবি কনক্লেভ বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের একটি উদ্যোগ। এতে সহোযোগিতা করছে এনার্জিপ্যাক, স্ট্র্যটেজিক পার্টনার হিসাবে ছিল ওমেন ইন লিডারশিপ, বাংলাদেশ ক্রিয়েটিভ ফোরাম, দ্য ডেইলি স্টার, বিসিসিবি এবং এনআরবি গ্লোবাল বিজিনেস, ইভেন্ট পার্টনার লা-মেরিডিয়ান, মিডিয়া পার্টনার একাত্তর টিভি এবং সমকাল, ডিজিটাল কনটেন্ট পার্টনার ছিল আইস বিজনেস টাইমস, ডিজিটাল মিডিয়া পার্টনার বাংলা ট্রিবিউন, রেডিও পার্টনার রেডিও টুডে, এবং পিআর পার্টনার মাস্টহেড পিআর।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ