আপনার অবস্থান
মুলপাতা > অন্যান্য সংবাদ > দৃক গ্যালারিতে শুরু হয়েছে ‘থাউজেন্ড স্টোরিজ সিজন-২’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা

দৃক গ্যালারিতে শুরু হয়েছে ‘থাউজেন্ড স্টোরিজ সিজন-২’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা

রাজধানীর ধানমন্ডির দৃক গ্যালারিতে শুরু হয়েছে  “থাউজেন্ড স্টোরিজ সিজন-২” শীর্ষক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী। গতকাল বৃহস্পতিবার ফেসবুক ভিত্তিক গ্রুপ ‘ছবি’ এর আয়োজনে এ অনুষ্ঠানটি বিকেল ৪টায় উদ্বোধন করা হয়। এবারের আসরে মোট ১৫০টি বাঁছাই করা ছবি প্রদর্শিত হয়েছে যার মাধ্যমে ৩টি ছবির আলোকচিত্রীকে দেওয়া হয়েছে শীর্ষ তিনটি পুরস্কার।

প্রদর্শনীর প্রতিযোগিতায় একটি ডি.এস.এল.আর ক্যামেরা প্রথম পুরস্কার পেয়েছে রজিবুল ইসলামের তোলা একটি ছবি।  ইসমাইল খান নাঈমের তোলা ছবি পায় একটি ৫০ এমএম প্রাইম লেন্স  দ্বিতীয় পুরস্কার হিসেবে আর হিমেল নবীর তোলা ছবি পায় একটি ১৮-৫৫ লেন্স  তৃতীয় পুরস্কার হিসেবে।

মো: আসাফ উদ দৌলার উপস্থাপনায় থাউসেন্ড স্টোরিজ সিজন-২ এর শুভ উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি  বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এবং একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বিশিষ্ট ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার ও ব্যবসায়ী আফজাল করিম, তাজমা সিরামিক এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর পরিচালক মতিউর রহমান এবং বগুড়া ফটোগ্রাফি ক্লাবের সভাপতি ডা. মোসাদ্দেক রহমান।

ফেসবুক গ্রুপ ‘ছবি’ এর সভাপতি তৌহিদ পারভেজ বিপ্লব জানান, অনলাইনে দেশ ও বিদেশের আলোকচিত্রীদের কাছ থেকে ছবি আহ্বান করা হয়। এতে ৮২০জন আলোকচিত্রী মোট ৪০৮০টি ছবি জমা দেন। আবদুস এস আলিম, তানভির রোহান এবং ইউসুফ তুষারের বিচারক প্যানেল ১৫০টি ছবি বাঁছাই করেন। সেখান থেকেই বাঁছাই করা হয় শীর্ষ তিন ছবি।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জনাব আফজাল করিম বলেন, এরকম প্রদর্শনী আরো বেশি বেশি হওয়া প্রয়োজন যাতে তরুণরা আরো এই সৃজনশীল শিল্পের দিকে এগিয়ে আসে।

থাউসেন্ড স্টোরিজ সিজন-২ এর বিচারক মো: তানভীর হাসান রোহান বলেন, এই প্রতিযোগীতার বিচার করতে গিয়ে ছবিগুলো দেখে মনে হয়েছে ফটোগ্রাফীতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজন সঠিক দিক নির্দেশনা ও সুযোগ সুবিধা।

অনুষ্ঠানের প্রধাণ অতিথি বলেন, জীবন, জীবিকা, মানবতা সহ প্রকৃতির অনেক বৈচিত্রময় চিত্র একটি ছবিতে ফুটে উঠে। আলোকচিত্রির সৃজনশীলতায় নির্ভর করে ছবিটা কতাটা গুরুত্বপূর্ণ এবং জীবন্ত হয়ে উঠবে। তিনি আরো বলেন বিষয়বস্তু নির্বাচনের বৈচিত্রতা, প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার আর প্রদর্শনীর দ্বারা আলোকচিত্রিতদের আরো সৃজনশীল হতে হবে।

প্রদর্শনীটি চলবে আগামী ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত। প্রতিদিন দুপুর ৩টা থেকে রাট ৮টা পর্যন্ত প্রদর্শনী চলবে।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ