আপনার অবস্থান
মুলপাতা > অন্যান্য সংবাদ > তৃতীয় বাংলাদেশ রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং সম্মেলন অনুষ্ঠিত

তৃতীয় বাংলাদেশ রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং সম্মেলন অনুষ্ঠিত

পানির সংকট মোকাবেলায় বিকল্প হিসেবে বৃষ্টির পানির গুরুত্ব এবং রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং বিষয়ক নতুন নতুন ধারণা, প্রযুক্তিগত সম্ভাবনা, কার্যক্রম ও অভিজ্ঞতা তুলে ধরতে মার্চ ৯, ২০১৭ রাজধানীর এক হোটেলে তৃতীয়বারের মতো দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং সম্মেলন।

ইন্টারন্যাশনাল ট্রেনিং নেটওয়ার্ক (আইটিএন-বুয়েট), সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এন্ভারনমেন্ট (সিএসই) ইন্ডিয়া এবং রেইন ফোরাম’র সহযোগিতায় এ সম্মেলনের আয়োজন করে ওয়াটার এইড বাংলাদেশ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের সচিব মো: শহীদ উল্লা খন্দকার এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত এইচ ই জোহান ফ্রিসেল।

সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এন্ভারনমেন্ট (সিএসই) ইন্ডিয়া’র মহাপরিচালক ড. সুনিতা নারায়ণ এবং স্বাগত বক্তব্য দেন ওয়াটার এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. মো. খায়রুল ইসলাম।

বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সরকারী, বেসরকারী সংস্থা ও এনজিও থেকে প্রায় দেড় শতাধিক অংশগ্রহণকারী সম্মেলনটিতে রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং নিয়ে আলোচনা করেন।

সম্মেলনের প্রধান অতিথি গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: শহীদ উল্লা খন্দকার বলেন, “আমাদের বাসস্থান পৃথিবীকে বাঁচিয়ে রাখার প্রধান নিয়ামক হল পানি। আমারা জানি বৃষ্টির মাধ্যমেই বিশে^র পানির পূনঃবন্টন হয়ে থাকে। কিন্তু জনসংখ্যার দ্রুত বৃদ্ধি, নগরায়ন, জলবায়ূ পরিবর্তন ইতাদি কারনে প্রতিনিয়ত ভূ-পৃষ্ঠ এবং ভূ-গর্ভস্থ পানির উৎস দূষিত হয়। ভূ-গর্ভস্থ পানির আর্সেনিক দূষণ, উপকূলীয় অঞ্চলের লবণাক্ততা, ভূ-পৃষ্ঠের পানির অধিক উত্তোলনের ফলে ভূ-গর্ভের পানি শুকিয়ে যাওয়া প্রভৃতি কারণে পানির সংকট দেখা দেয়। আমরা জানি বৃষ্টির পানি ভূ-পৃষ্ঠ ও ভূ-গর্ভস্থ পানির প্রধান উৎস। তাই প্রাণীজগত ও উদ্ভিদের প্রাণরক্ষাকারী এই পানির সঙ্কট মোকাবেলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের বিকল্প নেই।”

বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত এইচ ই জোহান ফ্রিসেল বলেন, “প্রতিদিন আমারা অসংখ্য চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে থাকি। পানির সমস্যা এগুলোর মধ্যে অন্যতম যা আমরা কোনভাবে এড়িয়ে যেতে পারি না। পানির সংকট নিরসন এবং এর সঠিক ব্যবস্থাপনা-সংক্রান্ত সমস্যা মোকাবেলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।”

সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনকারী সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট (সিএসই) ইন্ডিয়া’র মহাপরিচালক ড. সুনিতা নারায়ণ গ্রামীণ অঞ্চলে কীভাবে কৃষিকাজে বৃষ্টির পানিকে ব্যবহার করা যায় সে বিষয়টি তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, “বাংলাদেশ ও ভারতে আগে বৃষ্টির পানি থেকেই ভূ-গর্ভস্থ পানি তৈরি হতো। কিস্তু বর্তমানে জলবায়ূ পরিবর্তনের কারণে বৃষ্টিপাত কমে গেছে। তাই আমাদেরকে বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির প্রতিটি ফোটাকে সংরক্ষণ করতে হবে। গ্রামাঞ্চলে পুকরে এবং শহরে বাড়ির ছাদে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।” তিনি আরো বলেন, বৃষ্টির পানি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে পারলে বর্ষাকালে বন্যা এড়ানো সম্ভব হবে।

ড. মো. খায়রুল ইসলাম তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, “বাংলাদেশে পানি ব্যবস্থাপনা নিয়ে যে সকল সমস্যা রয়েছে রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং তার একটি বাস্তবসম্মত, সাশ্রয়ী ও টেকসই সমাধান। শুধু পানি সংকট মোকাবেলা নয়; পাশাপাশি জলবায়ূ পরিবর্তনের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত পদক্ষেপ গ্রহণ, জলাবদ্ধতা হ্রাস এবং পানি-সংশ্লিষ্ট ইকোসিস্টেম পুনরূদ্ধার করতে হবে।”

সেশনের চেয়ার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্ট্যামফোর্ড বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফিরোজা আহমেদ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ^বিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরোকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. এবিএম বদরুজ্জামান।

সেশনটিতে শেলটেক প্রাইভেট লি:’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. তৌফিক এম সিরাজ, ওয়াটারএইড ইউকে’র দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক কারিগরী উপদেষ্টা আরজেন নাফস, বুয়েট’র (আইটিএন-বুয়েট) পরিচালক ড. এম আশরাফ আলী, ভারতের ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট’র কর্মসূচী ব্যবস্থাপক ড. মাহরীন মাট্টো, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. কাজী মতিন ইউ আহমেদ এবং রেইন ফাউন্ডেশন, নেদারল্যান্ডস’র কনসালট্যান্ট অ্যারনাউদ ক্যাইজার সম্মেলনে তাদের প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

সম্মেলনে প্রত্যেক বক্তাই বৃষ্টির পানির সর্বোত্তম ব্যবহার, ভৌগলিক প্রেক্ষাপটে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের চ্যালেঞ্জ, ভিন ভিন্নœ ভৌগলিক অঞ্চলে বৃষ্টির পানি’র মান নিয়ে সমস্যা, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের আইনগত কাঠামো, নীতিমালা, কৌশল, চ্যালেঞ্জ এবং বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে প্রযুক্তিগত সুযোগ ও উদ্ভাবনের উপর গুরত্বারোপ করেন।

ওয়াটার এইড বাংলাদেশ ও সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট (সিএসই) ইন্ডিয়া ২০১০ সাল থেকে আরবান রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং’র ওপর দক্ষতা বৃদ্ধি বিষয়ক বিভিন্ন কর্মসূচীর আয়োজন করে আসছে।

যৌথ এ উদ্যোগটি ইতোমধ্যে বাংলাদেশের আরবান রেইনওয়াটার হার্ভেস্টিং’র সাথে সংশ্লিষ্ট দেড় শতাধিক পেশাজীবির (স্থপতি, প্রকৌশলী, পরিকল্পনাবিদ ও শিক্ষক) দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়েছে।

বাংলাদেশে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণকে জনপ্রিয় করা এবং এর প্রচারণার অংশ হিসেবে ২০১২ ও ২০১৪ সালে এ ধরনের রেইনওয়াটার কনভেনশনের আয়োজন এবং ২০১১, ২০১৩ ও ২০১৫ সালে রেইন ডে উদযাপন করা হয়েছে। (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ