আপনার অবস্থান
মুলপাতা > অন্যান্য সংবাদ > ড্যাফোডিল ও বৃটিশ কাউন্সিলের উদ্যোগে ইনোভেটিভ টিচিং এন্ড লার্নিং এক্সপো উদ্বোধন

ড্যাফোডিল ও বৃটিশ কাউন্সিলের উদ্যোগে ইনোভেটিভ টিচিং এন্ড লার্নিং এক্সপো উদ্বোধন

২৫ আগষ্ট, ২০১৭ সকাল ১০ টায় ঢাকাস্থ সোবহানবাগে ড্যাফোডিল ট্ওায়ারে দুইদিনব্যাপী ইনোভেটিভ টিচিং এন্ড লার্নিং এক্সপো ২০১৭ উদ্বোধন করেন শিক্ষা মন্ত্রী জনাব নুরুল ইসলাম নাহিদ, এমপি।

ড্যাফোডিল এডুকেশন নেটওয়ার্ক ও বৃটিশ কাউন্সিল, বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক্সপোর সহযোগিতায় এবং স্ট্রেটিজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছেন এনসিসি এডুকেশন (ইউকে), আইডিপি, ভেনচুরাস, বিএসএইচআরএম, এইচআরডিআই, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, টেন মিনিট স্কুল, বোল্ড ও জবসবিডি।

এক্সপোতে ছিল প্রজেক্ট প্রদর্শনী, ইনোভেটিভ টিচিং এওয়ার্ড, ইনোভেটিভ প্রজেক্ট এওয়ার্ড, প্লেনারী সেশান, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, রাউন্ডটেবিল ডিসকাশন ইত্যাদি। এতে দেশি বিদেশী শীর্ষস্থানীয় শিক্ষাবিদ/ বিশেষজ্ঞগণ সেমিনার. প্লেনারি সেশন, ওয়ার্কশপ এবং রাউন্ড টেবিল আলোচনার মাধ্যমে তাদের উদ্ভাবিত বিষয়সমূহ তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে দেশের সর্বস্তরের শিক্ষার্থী ও শিক্ষক, শিক্ষাবিদ, শিক্ষাকর্মী, নীতিনির্ধারক ও শিক্ষা ব্যবস্থাপনার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অংশ নেন। ড্যাফোডিল ফ্যামিলির চেয়ারম্যান মো: সবুর খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির উপাচার্য ড, মুনাজ আহমেদ নূর ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. ইউসুফ এম ইসলাম। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এসসিসি এডুকেশন, ইউকে’র প্রধান নির্বার্হী কর্মকর্তা এলান নরটন ও বৃটিশ কাউন্সিল বাংলােেদশের কালচারাল সেন্টারের প্রধান সারওয়াত রেজা। স্বাগত বক্তব্য দেন এক্সপো সাংগঠনিক সভাপতি মোহাম্মদ নূরুজ্জামান ও ধন্যবাদ বক্তব্য রাখেন এক্সপো কো চেয়ার প্রফেসর ড. ফরিদ এ সোবহানী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলভাবে চিন্তা করতে হবে এবং উদ্ভাবনী শক্তিকে কাজে লাগাতে হবে। সৃজনশীল দৃষ্টিভঙ্গি ও উদ্ভাবনী শক্তিকে কাজে লাগিয়ে নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করতে হবে এবং এর মাধ্যমে নিজেদেও সমস্যাগুলো সমাধান করতে হবে। সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রয়োজনীয় গবেষণার ব্যবস্থা থাকতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শুধু সার্টিফিকেট অর্জনের জন্য উচ্চ শিক্ষা নয়। এখানে একটি বড় পরিবর্তন আনতে হবে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষার্থীদের অনেক দায়িত্ব রয়েছে। শিক্ষা শুধু শ্রেনিকক্ষের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবেনা। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নতুন প্রজন্মকে প্রস্তুত করতে হবে।নতুন জ্ঞান অনুসন্ধান করতে হবে। এজন্য ইনোভেটিভ টিচিং ও লার্নিং গুরুত্বপূর্ণ।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, আমরা চিরকাল শুধু জ্ঞান ও প্রযুক্তি আমদানিকারক থাকব না। আমাদেও নতুন প্রজন্ম বিশ্বমানের মেধার অধিকারী। তারা একদিন জ্ঞান ও প্রযুক্তি রপ্তানি করবে। তিনি বলেন, মানবসম্পদ গড়ার ওপর আমরা জোর দিচ্ছি। শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় দক্ষতা দিতে হবে। সেজন্য কারিগরি শিক্ষার প্রসাওে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রায় সকল শিশুকে স্কুলে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষায় ছেলেমেয়েদেও মধ্যে সমতা অর্জিত হয়েছে। নারীশিক্ষার উন্নয়নের মাধ্যমে এটা আমাদেও সমাজে বিরাট পরিবর্তন সাধন করেছে। তিনি বলেন, সবার জন্য অস্টম শ্রেনি পর্যন্ত বেসিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

ইনোভেটিভ টিচিং এন্ড লার্নিং শিক্ষার একটি মৌলিক বিষয়। আমাদের শিক্ষার্থীদের গতানুগতিক পাঠ্যপুস্তক ও ক্লাসরুমের শিক্ষার মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে গুনগত ও মান সম্মত উন্নত শিক্ষার লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয়।তাই গতানুগতিক শিক্ষার বাইরে এসে উদ্ভাবনী শিক্ষায় নতুন প্রজন্মকে দক্ষ, আধূনিক ও উন্নত শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে আর এজন্য অবশ্যই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটাতে হবে। ইনোভেটি ও সৃজনশীল দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে নতুন জ্ঞান ও নতুন সৃষ্টিশীল ধারায় শিক্ষা দেয়া, শিক্ষা গ্রহণ করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয় আর সেজন্য এ ধরনের এক্সপো আয়োজন খুবই জরুরী । তিনি আরো বলেন, আমাদের শিক্ষার মূল লক্ষ্য আধূনিক ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য নতুন প্রজন্মকে যুগোপযোগী শিক্ষার মাধ্যমে প্রস্তুত করে তুলতে হবে। ।

সভাপতির বক্তব্যে মোঃ সবুর খান বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রযাত্রায় শিক্ষার কলা কৌশলে অনেক পরিবর্তন এসেছে, নিত্য নতুন উদ্ভাবন শিক্ষা পদ্ধতিকে বিকশিত করছে। এ পরিবর্তনের সাথে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের পরিচয় ঘটানোর লক্ষ্যে দেশে প্রথম বারের মত এ এক্সপোর আয়োজন করা হয়েছে। তিনি আগামীতে দেশের ৬৪ টি জেলায় এ ধরনের এক্সপো আয়োজনের আমা প্রকাশ করেন এবং এ ক্ষেত্রে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন।

এক্সপোতে মোট ইনোভেটিভ টিচিং এর ওপর ৫৮ টি প্রজেক্ট এর মধ্যে ১ম স্থান অধিকার করেন গোপালগঞ্জ জেলার ডালনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লতিফা আক্তার শিউলি এবং ২য় স্থান অধিকার করেন বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের কারিকুলাম বিশেষজ্ঞ ড. মোঃ শাহ আলম মজুমদার। এক্সপোতে মোট ৪ টি ওয়ার্কশপ, ৬ টি সেমিনার, ২ টি প্লেনারী সেশান ও ১ টি রাউন্ডটেবিল অনুষ্টিত হবে। আইডিপি, টেন মিনিট স্কুল, আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশন ও পদক্ষেপ তাদের শিক্ষা সামগ্রী ও সেবা সমূহ প্রদর্শন করেন।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ