আপনার অবস্থান
মুলপাতা > শিল্প ও খাতসমূহ > বিদ্যুৎ ও জ্বালানী > রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের জ্বালানি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া অনুমোদন

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের জ্বালানি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া অনুমোদন

বাংলাদেশ এবং রাশিয়া গত ১৫ মার্চ, ২০১৭ ঢাকায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের স্পেন্ট ফুয়েল (ব্যবহৃত জ্বালানি) ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া অনুমোদন ও অনুস্বাক্ষর করেছে।

উভয়পক্ষ যথা শিগগির সম্ভব আনুষ্ঠানিক স্বাক্ষরের জন্য চূড়ান্ত দলিল তৈরি করতে সম্মত হয়েছে।

সম্প্রতি একটি রুশ প্রতিনিধিদলের ঢাকা সফরকালে এ অগ্রগতি অর্জিত হয়। প্রতিনিধিদলে ছিলেন রুশ রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি সংস্থার উপপ্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিকোলাই স্পাস্কি এবং পরিবেশ, শিল্প ও পারমাণবিক তদারকি (সুপারভিশন) সেবা সংক্রান্ত রুশ ফেডারেল সংস্থার (রসটেকনাদজর) উপপ্রধান আলেক্সি ফেরাপনটভ। বাংলাদেশে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্দর ইগনাতভ ও দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

দ্বিপক্ষীয় আলোচনার কেন্দ্রীয় বিষয় ছিল রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের ব্যবহৃত জ্বালানি ব্যবস্থাপনা। বিস্তাারিত আলোচনার পর উভয়পক্ষ একটি ঐক্যমতে পৌঁছতে সক্ষম হয়।

অন্যান্য যে সব আলোচনা স্থান পায় তার মধ্যে রয়েছে প্রস্তুতি পর্বের বিভিন্ন কাজ সম্পন্ন বিষয়ক সিডিউল এবং রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মূল পর্বের কাজের শুরু।

উভয়পক্ষের মতে আগামী দিনগুলোতে সর্বাধিক প্রণিধানযোগ্য কাজ হলো নির্ধারিত সময় অনুযায়ী প্রকল্পের প্রথম পাওয়ার ইউনিটের ‘ফার্স্ট কনক্রিট’ সম্পাদন নিশ্চিত করা। দুদেশের পারমাণবিক শক্তি নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন (বিএইসি) এবং প্রকল্পের মূল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এএসই গ্রুপ অব কোম্পানিজের মধ্যে সহযোগিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে একটি বিশেষ ওয়ার্কিং গ্রুপ তৈরি করা হয়েছে।

সফরের অংশ হিসেবে রুশ প্রতিনিধিদল রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন এবং একটি ওয়ার্কিং মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ পারমাণবিক শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বায়েরা) চেয়ারম্যান নাঈয়ুম চৌধুরী এবং পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. মনজুরুল হক এবং এএসই গ্র“প অব কোম্পানিজের প্রতিনিধিরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য নির্ধারিত শিডিউল কার্যক্রমের অগ্রগতি সংক্রান্ত প্রাথমিক একটি প্রতিবেদন আগামী জুন-জুলাই, ২০১৭ মস্কোতে অনুষ্ঠিতব্য যৌথ সমন্বয় পরিষদের সভায় উপস্থাপন করা হবে।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ