আপনার অবস্থান
মুলপাতা > শিল্প ও খাতসমূহ > তথ্য প্রযুক্তি > তরুণদের উৎসাহ ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে বাস্তবতায় রূপান্তর করছে: পলক

তরুণদের উৎসাহ ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে বাস্তবতায় রূপান্তর করছে: পলক

‘ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ’ ২০১৭ এর তিন দিনব্যাপী চূড়ান্ত ইভেন্টের পর গত ৩০ অক্টোবর রাতে পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে তরুণ প্রজন্ম বাংলাদেশের বৈচিত্রময় সংস্কৃতির প্রসারে এবং শান্তি ও সহনশীলতাকে ধরে রাখতে একসাথে কাজ করার অঙ্গীকার করে ।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন  “আজ তরুণদের অসাধারণ সব আইডিয়াগুলোর মাধ্যমে ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জের মতো একটি প্ল্যাটফর্ম আমাদের দেখিয়ে দিয়েছে যে বাংলাদেশের তরুণদের মাঝে স্টার্ট-আপ সংস্কৃতি ছড়িয়ে উদ্ভাবনী শক্তি বাড়াতে ইউএনডিপি ও আইসিটি ডিভিশনের একসাথে কাজ করা কতটা জরুরী। তরুণদের এই উৎসাহ ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে বাস্তবতায় রূপান্তর করছে প্রতিদিন।”

প্রতিমন্ত্রী এ সময় বিজয়ী ৩টি দলকে জনতা টাওয়ারে কো-ওয়ার্কিং স্পেস বরাদ্দের ঘোষণা দেন এবং বিজয়ী দলসহ অন্যান্য প্রতিযোগী দলকে আইসিটি ডিভিশন কর্তৃক বাস্তবায়িত ইনোভেশন ডিজাইন এন্ড অন্ট্রাপ্রেনিওরশীপ একাডেমী(আইডিয়া) প্রকল্পেও জমা দিতে বলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইউএনডিপি বাংলাদেশের একটিং কান্ট্রি ডিরেক্টর কিওকো ইয়োকো সুকা ইভেন্টের সমাপনী বক্তব্যে বলেন- “তারুণ্যে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ একটি তরুণ দেশ। ইউএনডিপি এই বৃহৎ তরুণ জনসংখ্যাকে সঠিক প্ল্যাটফর্ম এবং প্রয়োজনীয় দক্ষতা প্রদানে আগ্রহী, আমাদের বিশ্বাস এটি দেশের একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়তে তাদেরকে সাহায্য করবে।”

উল্লেখ্য যে, দ্বিতীয় বছরের মতো ঢাকায় অনুষ্ঠিত হল ‘ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ’ ২০১৭ এর তিন দিনের আইডিয়া ল্যাব যা বিজয়ী তিনটি আইডিয়া নির্বাচনের মাধ্যমে শেষ হয়েছে গত সোমবার। বহুমাত্রিক বাংলাদেশের মানুষের বৈচিত্রময় ও শান্তিপূর্ণ রূপটিকে ধরে রাখার সৃজনশীল আইডিয়া প্রদানের জন্য এই চ্যালেঞ্জের বিজয়ী দলের নাম ঘোষণা করে বিশেষ বিচারকবৃন্দ।

বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি ডিভিশন,ফেসবুক ও  মাইক্রোসফট সহযোগিতায় ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ’ ২০১৭ আয়োজন করে ইউএনডিপি।

এক্সপার্টদের সহযোগিতায় ও নির্দেশনায় পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের জন্য বিজয়ী তিনটি দল পুরস্কার হিসেবে ৫০০০ ইউএস ডলার লাভ করে।

বৈচিত্র্যের এই একতাকে আরো শক্তিশালী করার জন্য তিন দিনের ইভেন্টে ৩০ জন প্রতিযোগী ৬ টি দলে বিভক্ত হয়ে একে অপরের সহযোগিতার মাধ্যমে তাদের প্রাথমিক পরিকল্পনাগুলো উন্নয়নে কাজ করে। বিভিন্ন পারিপাশ্বিক অবস্থার তরুণদের মিলিত দলগুলো প্রতিযোগিতায় সীমিত সময়ের মধ্যে তাদের সৃজনশীল সমাধানগুলো বের করে আনে।

তিন দিনের আইডিয়া নির্বাচন, প্রস্তুতি ও সমস্যা সমাধানের পর তিনটি আইডিয়া বাস্তবায়নের সম্ভাবনার ভিত্তিতে স্বীকৃতি লাভ করেছে। তরুণদের রাগ ও মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য তাদের সমস্যাগুলো শোনার জন্য ‘অনুবট’ নামের একটি স্বয়ংক্রিয় অনলাইন মেসেঞ্জারের এপ্লিকেশনের আইডিয়া দেয়ার জন্য এবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে টিম“বনসাই”।

জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আইডিয়া দিয়ে প্রথম রানার আপ হয়েছে টিম “জাগরণ” আর আইসিটি দক্ষতা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে গ্রামীণ নারীদের ক্ষমতায়নের আইডিয়া দিয়ে টিম “সেই তারা” হয়েছে দ্বিতীয় রানার আপ।

ইউএনডিপি বিজয়ী দলের সাথে তাদের পথ প্রদর্শক হিসেবে ঘনিষ্ঠ ভাবে কাজ করবে। তাদের আইডিয়া ও পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে সকলভাবে সহায়তা করবে এবং সফল প্রার্থীদের তাদের প্রচার এবং বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতেসাহায্য করবে।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ