আপনার অবস্থান
মুলপাতা > শিল্প ও খাতসমূহ > তথ্য প্রযুক্তি > জমে উঠেছে দেশের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি উৎসব

জমে উঠেছে দেশের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি উৎসব

digital-world-2016কেউ এসেছে শিক্ষককের সঙ্গে। আবার কেউ এসেছে বাবা বা মায়ের হাত ধরে। স্কুল-কলেজের ইউনিফর্ম পরা শিক্ষার্থীদের অনেক বড় সারিবদ্ধ লাইন। শিশু থেকে কিশোর-কিশোরী, সঙ্গে মধ্যবয়স্কা শিক্ষক-শিক্ষিকা। বয়সের ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে এ যেন অন্যরকম এক মিলনমেলা।

স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের পদচারণায় যেন নতুন প্রানের সঞ্চার পেয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহত তথ্য ও প্রযুক্তি উৎসব ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড। মেলার দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আসতে শুরু করে প্রযুক্তির উদ্ভাবনী জ্ঞান আহরণে।

দশম শ্রেনীতে পড়–য়া পরীক্ষার্থী আফরোজা আক্তার বলেন, তথ্য-প্রযুক্তি এখন আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয়। বর্তমানে আমাদের পাঠ্যসূচীতে তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয় পড়ানো হয়। তাই এই মেলায় এসে তথ্য-প্রযুক্তি নতুন বিষয় সম্পর্কে জানার চেষ্টা করছি।

ঢাকা সিটি কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী রেশমা আক্তার বলেন, তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কে যত ভালো জানবো ততই শিক্ষা ক্ষেত্রে ভালো করতে পারবো। বন্ধুরা মিলে এসেছি প্রযুক্তির এই মেলা দেখতে। বন্ধুরা মিলে বিভিন্ন স্টলে ঘুরে দেখছি গিয়েছি।

গুলশানের একাডেমিয়া ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল, মানারত ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল কলেজ, পুলিশ স্মৃতি স্কুল এন্ড কলেজ, গ্লোরি স্কুল এন্ড কলেজ, উত্তরার ওয়াইড ভিসন স্কুল, মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ ও তেজগাঁও সরকারী হাই স্কুলসহ রাজধানীর প্রায় ২০টির মধ্যে স্কুলে শিক্ষাথীরা এসেছে।।

মেলার দ্বিতীয় দিনে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ই-কমার্স, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ও প্রযুক্তিব্যবসা বিষয়ক মোট ৮টি সেশন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সকাল ‘ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফর স্টার্ট-আপ’ শীর্ষক এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় গুলনকশায় ।

সেমিনারে বক্তা হিসেবে ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও এফবিসিসিআই পরিচালক ও বেসিস’র সাবেক সভাপতি শামীম আহসান।

সকাল সাড়ে দশটায় এক নম্বর সেমিনার হল ‘লিভিং নো ওয়ান বিহাইন্ড’ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী ও সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এম নুরুজ্জামান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। একই সময় ‘ইমপ্রভিং বিজনেস ইফিসিয়েন্সি দো আইসিটি’ শীর্ষক এই সেমিনার বক্তা হিসেবে ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ; বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

দুপুরে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ-পার্সপেকটিভ স্মার্ট ঢাকা’ সেমিনারে বক্তা হিসেবে ছিলেন স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী খন্দকার মোশারফ হোসেন, ঢাকা দক্ষিণ মেয়র সাঈদ খোকন, মেয়র ঢাকা উত্তর আনিসুল হক। একই সময় ‘বিল্ডিং এ স্মার্ট স্টার্টআপ ইকো সিস্টেম-কানেক্টিং স্টার্টআপ’ শীর্ষক এই প্যানেল ডিসকাশনে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

বিকালে ‘আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প’ ‘ইনক্লুসিভ ফাইন্যান্স দো টেকনোলজিস’ ‘ইন্ড্রাস্ট্রি-একাডেমী ডায়ালগ ফর ডিজিটাল গ্রোথ’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে সরকারের ৪০টি মন্ত্রণালয় ও দফতরের পাশাপাশি বেসরকারি তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানও অংশ নিচ্ছে। নতুন উদ্যোগ বা স্টার্টআপের জন্য ৩৮টি স্টলও থাকছে। সব মিলিয়ে ২৬৩টি স্টল রয়েছে এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে।

‘নন স্টপ বাংলাদেশ’ স্লোগানে বুধবার থেকে শুরু হওয়া এই উৎসবের মূল আয়োজনে রয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। সহ-আয়োজক হিসেবে আছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), বিসিসি ও এটুআই।

এবারের আয়োজনে আইএফআইসি ব্যাংক প্ল্যাটিনাম পার্টনার হিসেবে রয়েছে। বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস), বাংলাদেশ ইউমেন ইন ইনফরমেশন টেকনোলজি, সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম (বিআইজেএফ) এবং বোল্ড রয়েছে সহযোগী পার্টনার হিসেবে।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ