আপনার অবস্থান
মুলপাতা > কর্পোরেট নিউজ > বৃদ্ধাশ্রম, এতিমখানা ও হাসপাতালে এলজির মশা প্রতিরোধী এসি প্রদান

বৃদ্ধাশ্রম, এতিমখানা ও হাসপাতালে এলজির মশা প্রতিরোধী এসি প্রদান

টেকসই সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচীর অংশ হিসাবে বৃদ্ধাশ্রম, এতিমখানা ও হাসপাতালের রোগীদের জন্য মশা প্রতিরোধক এসি প্রদান করেছে এলজি ইলেট্রনিক্স বাংলাদেশ।

বেসরকারি উদ্যোগে পরিচালিত বৃদ্ধাশ্রম বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান, মা ও শিশুদের জন্য পরিচালিত মগবাজারের আদ-দ্বীন হাসপাতাল এবং সরকারিভাবে পরিচালিত এতিমখানা ও শিশুযতœ কেন্দ্র ছোটমনি নিবাসের জন্য এ অনুদান প্রদান করা হয়।

রাজধানীর গুলশানের ভাটারায় গুড নেইবার স্কুলে আজ রবিবার আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এডওয়ার্ড কিম, এলজি হেডকোয়ার্টারের সিএসআর স্পেশালিস্ট হিয়ুন জিন জিওন, সিএসআর টিম লিডার মিনসিওক কিম ও গুড নেইবার বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর জিওং সেক কিম প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের কাছে ১০ হাজার মার্কিন ডলার সম-মূল্যের এসি হস্তান্তর করেন।

বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী কমিটির সদস্য মশিউর রহমান, আদ-দ্বীন হাসপাতালের পরিচালক ডা. নাহিদ ইয়াসমিন এবং ছোটমনি নিবাসের উপ-তত্ত্বাবধায়ক শিরীন সুলতানা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে এলজি’র অনুদান গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশ’র হেড অব কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক্স মাহমুদুল হাসান, গুড নেইবার বাংলাদেশ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক সে ইয়ুন হোয়াং, পরিচালক আনন্দ কুমার দাস ও প্রকল্প পরিচালক কিলিয়ন কিশোর দাস।

এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অ্যাডওয়ার্ড কিম বলেন, “এলজি টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাস করে। সুবিধাবঞ্চিত ও অসহায় মানুষ যেন সুস্থ-সবলদের মতই জীবনমান এবং সামাজিক উন্নয়নে অংশ নিতে পারেন, সে লক্ষ্যে এলজি কাজ করছে। এরই অংশ হিসেবে এবার তিনটি প্রতিষ্ঠানে মোট ৩০ হাজার মার্কিন ডলার সমমূল্যের মশা প্রতিরোধক এসি প্রদান করা হচ্ছে। শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থদের জন্য এটি সহায়ক হবে।”

তিনি বলেন, “বাংলাদেশ বিশেষ করে ঢাকায় প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক মানুষ মশাবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়। ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়ার মত রোগগুলো মানুষের জীবনশক্তি কেড়ে নেয়। এই অবস্থা প্রতিরোধে এলজি বাংলাদেশে মশাপ্রতিরোধক এসি ও টেলিভিশন (টিভি) নিয়ে এসেছে। বাজারজাত করার পাশাপাশি কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার (সিএসআর) অংশ হিসেবে এই এসি বিভিন্ন সংস্থায় বিতরণ করা হচ্ছে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে এই প্রযুক্তির এসি ও টিভি স্বীকৃতি লাভ করেছে।”

সম্প্রতি এলজি বিভিন্ন ধরণের সিএসআর কার্যক্রম পরিচালনা করছে। গত বছর রাজধানীর রায়েরবাজারে জাগো স্কুলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এলজি আইটি একাডেমি এবং এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ট্রাস্ট ফান্ড প্রতিষ্ঠা করেছে। এর আগে প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিরাপদ পানি সরবরাহে “গুড ওয়াটার প্রকল্প’ বাস্তবায়ন করেছে।

আইসিডিডিআর’বিসহ বিভিন্ন সংস্থায় এসি অনুদান দিয়েছে কোম্পানিটি। (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)

 

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ