আপনার অবস্থান
মুলপাতা > ব্যাবসায়ী সংগঠন > চেম্বার > দেশের মেধাবী দশ তরুন তরুণীকে স্বীকৃতি দিয়েছে জেসিআই বাংলাদেশ

দেশের মেধাবী দশ তরুন তরুণীকে স্বীকৃতি দিয়েছে জেসিআই বাংলাদেশ

jci-toyp১ অক্টোবর ২০১৬ তে অনুষ্ঠিত র‌্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন এর গ্র্যান্ড বলরুমের আনন্দ উৎসবে জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই) বাংলাদেশ এক ব্যতিত্রমী পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ভিন্ন ভিন্ন ক্ষেত্রে মেধাবী দশ তরুণ তরুণীর হাতে জেসিআই বাংলাদেশ আলোচিত ‘টেন আউটস্ট্যান্ডিং ইয়াং পার্সন অ্যাওয়ার্ড’ [টিওওয়াইপি] তুলে দেয়।

চলতি বছর জেসিআই তৃতীয় বারের মত ‘টিওওয়াইপি’ পুরষ্কার প্রদান করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এমপি শাহরিয়ার আলম এমপি।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ২০১৬ সালের জেসিআই বাংলাদেশের ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট সেনেটার সাখাওয়াত হোসেন মামুন। তিনি পদকপ্রাপ্ত ও কমিটির সকলকে এরকম অসাধারণ আয়োজনের জন্য অভিনন্দন জানান এবং সামনে আরও বড় পরিসরে অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য উৎসাহিত করেন।

২০০২ সালের জেসিআই ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট, ২০০৪ সালের ভাইস প্রেসিডেন্ট, জেসিআই বাংলাদেশ এর অ্যাডভাইসরি কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও ২০১৬ সালের ‘টিওওয়াইপি’ এর জুরি কমিটির চেয়ারম্যান সেনেটার ওয়াকার চৌধুরী আরও সদস্যদের অর্šÍভুক্তি এবং আরও বেশি সমাজ উন্নয়ন কাজের জন্য তাগিদ দেন।

২০১৬ সালের ন্যাশনাল ট্রেজারার ও অর্গানাইজিং কমিটির চেয়ারম্যান ইরফান ইসলাম এরকম আনন্দ উৎসবে জেসিআই সদস্যদের সক্রিয় অংশগ্রহনে সদস্যদের ধন্যবাদ জানান। এছাড়াও পৃষ্ঠপোষক এবং মিডিয়া পার্টনারদের সহযোগিতার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানান।

জেসিআই সদস্যগণ, মিডিয়া কর্মী, কূটনীতিবিদ, সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী নেতা, নেতৃস্থানীয় উদ্যোক্তা, পৃষ্ঠপোষক এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

জেসিআই বাংলাদেশ বিশ্বাস করে ‘টিওওয়াইপি’ বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং উন্নতিতে তরুন তরুণীদের অবদানকে স্বীকৃতি দেয়। এই তরুন ব্যাক্তিদের স্বীকৃতি দিয়ে জেসিআই সামাজিকভাবে দায়বদ্ধ নেতাদের অবস্থার উন্নতি করছে। স্বীকৃতিপ্রাপ্ত এই সকল তরুণ তাদের সহকর্মী বা সহপাঠীদের এই মর্যাদা অর্জনের জন্য এবং অন্যদের সাহায্য করার জন্য অনুপ্রাণিত করে। তদের আবিস্কার, সংকল্প এবং অকপটতার গল্প তরুণদের আরও ভালো নেতা এবং সমাজ তৈরির পথ সম্প্রসারিত করে।

এই বছর পদকপ্রাপ্তদের একজন হচ্ছেন হেদায়েতুল্লাহ। তিনি এন্ট্রেপ্রিনিউরিয়াল একোমপ্লিশমেন্টে অসাধারণ অবদানের জন্য এই পদক পেয়েছেন। ইমরান করিমও এন্ট্রেপ্রিনিউরিয়াল একোমপ্লিশমেন্টে অসাধারণ অবদানের জন্য এই পদক পেয়েছেন। মেডিকেল ইনোভেশনে অসাধারণ অবদানের জন্য পদক পেয়েছেন এস.এম সাইফুর রহমান।

ব্যাক্তিগত একোমপ্লিশমেন্টে অসাধারণ অবদানের জন্য এই পদক পেয়েছেন শামিম কবির। তাহসান রহামান খান এই পদক পেয়েছেন কালচারাল এচিভমেন্টে অসাধারণ অবদানের জন্য। এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল এই পদক পেয়েছেন রাজনৈতিক নেতৃত্বে অবদানের জন্য। নৈতিক নেতৃত্বে অবদানের জন্য এই পদক অর্জন করেছেন নাফিসা কামাল।

প্রযুক্তিগত উন্নয়নে অবদানের জন্য পদক পেয়েছেন সৈয়দা কামরুন নাহার আহমেদ। প্রযুক্তিগত উন্নয়নে অবদানের জন্য আরও পদক পেয়েছেন মেহেদি হাসান খান। ভলেন্টারি নেতৃত্বে অবদানের জন্য পদক পেয়েছেন জি. সুমদানি ডন।

জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই) ১৮ থেকে ৪০ বছরের তরুন পেশাজীবী ও নেতাদের একটি বিশ্বব্যাপী প্রতিষ্ঠান। ১২০ টি দেশে ২,০০,০০০ এর মত সদস্য নিয়ে এই প্রতিষ্ঠানটি কাজ করছে।

তরুণদের নেতৃত্বের দক্ষতা, সামাজিক দায়িত্ব, সহকারিতা, এবং বানিজ্যিক গুনাবলি ইত্যাদির উন্নতি বিশ্বে ইতিবাচক পরিবর্তনের জন্য অত্যন্ত জরুরি। আমাদের কাজ হচ্ছে তরুণদের এসব গুণাবলির উন্নয়নের সুযোগ করে দেওয়া। জেসিআই এর হেডকোয়ার্টার সেন্ট লুইস, মিসরি, ইউএসএ তে অবস্থিত।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ