আপনার অবস্থান
মুলপাতা > ব্যাংকিং ও অর্থায়ন > বিনিয়োগ ও অর্থনীতি > প্রথম বারের মত ঢাকায় অনুষ্ঠিত হল ফিন্যান্সিয়াল ইনোভেশন ফোরাম ২০১৭

প্রথম বারের মত ঢাকায় অনুষ্ঠিত হল ফিন্যান্সিয়াল ইনোভেশন ফোরাম ২০১৭

ফিন্যান্সিয়াল ফোরাম বাংলাদেশের (এফএফবি) গত এপ্রিল ২৯, ২০১৭ তারিখে হোটেল লা মেরিডিয়ান ঢাকার গ্র্যান্ড বলরুমে প্রথম ফিন্যান্সিয়াল ইনোভেশন ফোরাম ২০১৭ আয়োজন করেছিল ।

আয়জনে সহযোগিতা করে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক এবং দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড।

ফোরামটির থিম ছিল ‘বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধির নতুন কাঠামোগত রুপান্তর’। অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য দেন ফিন্যান্সিয়াল ফোরাম বাংলাদেশের (এফএফবি) প্রধান সম্পাদক জনাব মুহাম্মদ এ (রুমী) আলী। তিনি তার বক্তব্যে দীর্ঘস্থায়ী অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য ফিনটেক ক্ষেত্রে দক্ষতা এবং উদ্দোক্তা তৈরির গুরুত্ব তুলে ধরেন।

ফোরামে ফিন্যান্সিয়াল ফোরাম বাংলাদেশের (এফএফবি) এর আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন এফএফবি প্রধান সম্পাদক মুহাম্মদ এ (রুমী) আলী, ফিরোজ আহমেদ খান, কো-ফাউন্ডার এবং সিইও অব এফএফবি, কো-ফাউন্ডার শরিফুল ইসলাম, লিডিং ভেঞ্চারের প্রতিষ্ঠাতা টম কামিংস, এলএসইর গভর্নর ও ভিজিটিং প্রফেসর-ইন-প্র্যাকটিস এবং এনইউএসের অ্যাডজাঙ্কট প্রফেসর লুৎফি সিদ্দিকি, টেলিনর হেলথের সিইও সাজিদ রহমান, মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সোনিয়া বশির কবীর; হ্যাশক্লাউড পিটি অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান তারিক আমিন ভূঁইয়া, এবং এশিয়ান টাইগার ক্যাপিটাল পার্টনারসের গ্রুপ চেয়ারম্যান ইফতেখারুল (ইফতি) ইসলাম।

ফিরোজ আহমেদ বলেন, “অর্থনৈতিক ক্ষেত্রের নেতা এবং পেশাদারদের নতুন চিন্তাধারা, উদ্ভাবন এবং জ্ঞানের মাধ্যমে অনুপ্রানিত করতেই এফএফবি এর সূচনা।”

এর পরে বক্তব্য দেন স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবরার এ. আনোয়ার । অনুষ্ঠানের প্রথম অধিবেশনের পরে নতুন কর্মসূচির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যসমূহ তুলে ধরেন লিডিং ভেঞ্চারের প্রতিষ্ঠাতা টম কামিংস।

এই অধিবেশনে আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল, ‘আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক কর্মকান্ডে উদ্ভাবন’। এই পর্বে ফিন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন বা আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক কর্মকান্ডের প্রেক্ষাপটে আর্থিক খাতের আনুষ্ঠানিক সেবা পাওয়াসহ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে আলোচনা করা হয়। এতে কার্যকর নীতিমালা প্রণয়ন এবং আইনগত ও নিয়ন্ত্রণমূলক পরিবেশ তৈরির মাধ্যমে ব্যয় সাশ্রয়ী উপায়ে আর্থিক খাতের আনুষ্ঠানিক সেবা ছড়িয়ে দেওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

এই অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. ফয়সাল আহমেদ। এতে বক্তাদের মধ্যে ছিলেন আরফান আলী, সভাপতি এবং এমডি, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড; বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক (ইডি) মিজানুর রহমান জোদ্দার; সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, এমডি, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড; মাস্টারকার্ড বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল ।

এর পরে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ গ্রহণ করেন ড. মার্কোস এগুইগ্রেন, কার্যনির্বাহী পরিচালক, গ্লোবাল এলায়েন্স ফর ব্যাংকিং অন ভ্যালু । এর পরবর্তিতে শুরু হয় ফোরামের দ্বিতীয় অধিবেশন। এই পর্বের আলোচ্য বিষয় ছিল ‘আর্থিক খাতে দক্ষতা উন্নয়ন’। দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক প্রয়োজন বা চাহিদা মেটাতে দক্ষ পেশাজীবী তৈরির ওপর জোর দিয়ে দেশের আর্থিক খাতে বিদ্যমান চ্যালেঞ্জ ও ভবিষ্যৎ করণীয় নির্ধারণের সুপারিশ করা হয়।

এই অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন এলএসইর গভর্নর ও ভিজিটিং প্রফেসর-ইন-প্র্যাকটিস এবং এনইউএসের অ্যাডজাঙ্কট প্রফেসর লুৎফি সিদ্দিকি। পর্বটিতে প্যানেল আলোচকদের মধ্যে ছিলেন ড. মোহাম্মদ মুসা, অধ্যাপক, স্কুল অফ বিজনেস এন্ড ইকোনমিকস, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি; চার্টার্ড ইন্সুরার এবং গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ফারজানা চৌধুরী এসিআইআই (লন্ডন); দি সিটি ব্যাংক লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) শেখ মোহাম্মদ মারুফ; এবং স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের হেড অফ গ্লোবাল ব্যাংকিং নাসের এজাজ বিজয় ।

ফোরামের তৃতীয় ও শেষ অধিবেশনে আলোচনার বিষয় ছিল ‘ইনোভেশন ইন ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, ফিনটেক অ্যান্ড ইনসুরটেক’। এই অধিবেশনে বর্তমান বিশ্বে আর্থিক সেবা খাতে ইনোভশেন বা উদ্ভাবনের পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। সেই সঙ্গে আমাদের জন্য আর্থিক সেবা খাতে ইনোভেশন বা উদ্ভাবনের গুরুত্ব পর্যালোচনা এবং ব্যাংক, বীমা ও ফিনটেক খাতের ভবিষ্যত নিয়ে আলোচনা করা হয়।

এই অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন টেলিনর হেলথের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিদ রহমান। পর্বটিতে প্যানেল আলোচক ছিলেন আবরার এ আনোয়ার, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের; এশিয়ান টাইগার ক্যাপিটাল পার্টনারসের গ্রুপ চেয়ারম্যান ইফতেখারুল (ইফতি) ইসলাম; দি সিটি ব্যাংক লিমিটেডের এএমডি জনাব মাশরুর আরেফিন; মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবীর; এবং হ্যাশক্লাউড পিটি অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান জনাব তারিক আমিন ভূঁইয়া।

পরবর্তীতে জয়দ¦ীপ প্রভু, প্রফেসর অফ বিজনেস এন্ড এন্টারপ্রাইজ (ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়) ইংল্যান্ড একটি ভিডিও কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করেন। ফোরামের সঞ্চালক টম কামিংস সম্পূর্ণ অনুষ্ঠানের আলেচনা সংক্ষেপে তুলে ধরেন এবং এই খাতকে এগিয়ে নিতে অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স গঠন করেন।

অনুষ্ঠানের সমাপনীতে বিশেষ বক্তব্য দেন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশের ভাইস চেয়ারম্যান এবং ঢাকা ব্যাংকের লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জনাব সৈয়দ মাহবুবুর রহমান।

বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূত সাদসেল ব্লিকেন এধরনের উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, -“আমি ফাইনান্সিয়াল ইনোভেশন ফোরামকে সাধুবাদ জনাই এরকম একটি প্লাটফর্মের সুযোগ তৈরী করে দেবার জন্য। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সেক্টরে এটি একটি গুরূত্বপূর্ণ উদ্যোগ। নিরাপদ অর্থনৈতিক অর্ন্তভুক্তি বিশেষ করে নারীদের প্রথাগত অর্থনৈতিক সেক্টরে নিয়ে আসতে বিশেষ সহায়ক হবে এ উদ্যোগটি। বাংলাদেশে অর্থনৈতিক ও ব্যাকিং খাতেকে নিরাপদ রাখতে প্রযুক্তির বাজার বিস্তারের সম্ভাবনা রয়েছে। যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে সমৃদ্ধ করতে অদূর ভবিষ্যতে সহায়ক হবে। আমি ফাইনান্সিয়ান ইনোভেশন ফোরামের সামগ্রিক উন্নতি কামনা করছি।”

মূল আয়োজনের শেষে ‘ব্লকচেইন-দ্য নেক্সট বিগ ডিসরাপশন ফর ফিনটেক’ নামে একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এটি পরিচালনা করেন হ্যাশক্লাউড অস্ট্রেলিয়ার পিটি চেয়ারম্যান তারিক আমিন ভূঁইয়া।

কর্মশালাটিতে ব্লকচেইন টেকনোলজির বিষয়ে জোর দেওয়া হবে। ব্লকচেইন সাধারণত বিটকয়েন ও অন্যান্য ক্রিপটো-কারেন্সিকে শক্তিশালী করে থাকে।

সংশ্লিষ্ট সব অংশীদার ও পৃষ্ঠপোষকদের সহযোগিতা ছাড়া ফিন্যান্সিয়াল ফোরাম বাংলাদেশ (এফএফবি) গঠনের উদ্যোগ সফল হতো না। টাইটেল স্পনসর হিসেবে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক ফোরামটি আয়োজনে জোরালো সমর্থন দিয়েছে। এতে সহায়তা করেছে পাওয়ারড বাই দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেড, সহায়তায় ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড ও গ্রিন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স।

পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে ছিল মাস্টারকার্ড বাংলাদেশ; হোটেল লা মেরিডিয়ান ঢাকা ইভেন্ট পার্টনার, ট্যারাকোটা রেড ব্র্যান্ডিং পার্টনার, ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস মিডিয়া পার্টনার হয়েছে। মাস্টহেড পিআর হয়েছে জনসংযোগ পার্টনারের ভূমিকায়। এছাড়া অর্গানাইজিং বা সাংগঠনিক পার্টনার হয়েছে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম (বিবিএফ)।

Comments

comments

একই ধরণের সংবাদ